শরীফ চয়ন

Shorif Choyon

Shorif Choyon is an unique style Bengali font. This font is available for Unicode. You can use it in anywhere, specially for making logo, posters, magazines, banners and etc.
Author Notes : This is free font for Personal, Commercial and all type of usage. You can use it in anywhere.
Font Details
Type:Unicode
Designer:Shorif Uddin Shishir
Styles:1
Published:5 January 2018
Downloaded:



    |     Font Size  
Shorif Choyon
আমার সোনার বাংলা
ছোটো গল্পঃ- মুক্তি
"আরেহ গুরু আজ এত সক্কাল সক্কাল অফিস চললে যে...কি ব্যাপার হ্যা??"- দীপ পিছনে ঘুরে দেখলো হাতে টুথব্রাশ নিয়ে আর কিম্ভুত চেহারাটা নিয়ে ভোম্বল দাঁড়িয়ে দাত কেলাচ্চে...!!!! অনিচ্ছাসত্বেও দীপ জবাব দিল - 'এমনি রে আজ ভ্যালেন্টাইন ডে তো তাই তাড়াতাড়ি অফিস থেকে বেরোতে হবে...পুজা অপেক্ষা করবে..তাই'... এই বলে দীপ আর কিছু না শুনে গটগট করে এগিয়ে গেল বাস স্ট্যান্ডের দিকে.....পিছনে তখন একজোড়া হতবাক চোখ তার দিকে হা করে তাকিয়ে আছে সেদিকে ফিরেও তাকালোনা আর দীপ...!!!! আজ কিছু কাজেই আর মন বসছে না দীপের... খালি মনে হচ্চে কখন ৫টা বাজবে আর কখন সে উড়ে উড়ে নিজের প্রিয়তমার কাছে পৌছোবে.... তাড়াতাড়ি নিজের কাজ গুলো মেটাতে থাকল দীপ...আজ টিফিনটা বাক্সেই পড়ে রইল ওদিকে আর মনও গেলনা দীপের....বারবার ঘড়ির দিকে তাকাতে থাকল সে..উফফ এখনো ২ঘন্টা!! আজ বোধহয় দীর্ঘতম দিন সবচেয়ে..... আজ তার মন বারবার রিউইন্ড করে পিছনের দিকে যেতে থাকল....সেই দিনটা এখনো মনে আছে...সেদিনও ছিল ভ্যালেন্টাইন ডে..যেদিন সে পুজাকে প্রথম দেখেছিল.. "LOVE AT FIRST SIGHT!!" তারপর পুরো বছর টাইম লেগেছিল দীপের পুজাকে নিজের মনের কথা জানাতে... আর সবচেয়ে অদ্ভুত ব্যাপার পুজাও ওকে হ্যা বলেছিল এই ভ্যালেন্টাইন-ডের দিনই!! "পুজা"-বড় অদ্ভুত মেয়ে এই পুজা..সবসময় চঞ্চল ছটপটে কিন্তু বিচক্ষন! দীপ জানতোই না পুজাও তাকে ভালোবাসে কিন্তু দীপের মুখ থেকে শুনবে বলে কোনোদিন বুঝতেও দেয়নি...পরে বলেছিল দীপকে। এসব ভেবে ভেবে মনে মনেই হাসছিল দীপ...সম্বিৎ ফিরলো বিকাশদার ডাকে...'হ্যারে দীপ বললি যে ৫টায় বেরোবি..তো ৫টা তো বেজে গেছে'।। দীপ ধড়মড় করে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখে ৫.১৫ বাজে..."হা ঈশ্বর!!একি হল" বলে কোনোরকমে সব গুছিয়ে দৌড় দিল দীপ.......!!!!! বাসে আর বসার জায়গা পেলনা দীপ..খালি মনে মনে ভগবানকে ডাকতে থাকল-'হে ভগবান যেন ৬টার মধ্যে বাড়ি ঢুকে যাই..' তাদের ভালোবাসা শুরু হয়েছিল চারবছর আগে ঠিক এই দিনেই ঠিক ৬টা থেকে...মানে ওই টাইমেই পুজা ওকে হ্যা বলেছিল আর কি!! তারপর থেকে এই টাইমটা কক্ষনো মিস করেনা দীপ..পুজাও লেট করেনা কোনোদিনও... আজও করবেনা হয়ত!!!! এই সব ভাবতে ভাবতেই দীপের স্টপেজ এসে যাওয়ায় দীপ নামল বাস থেকে.....তাড়াতাড়ি বাড়ি ঢুকে আগে নিজের ঘরে দৌড়ে গেল দীপ...পুজা হয়ত অপেক্ষা করছে তার জন্যে.........!!!!!!!! পুজাকে ভাল করে দেখতে থাকল দীপ..... উফফ পুজাকে এই দিনটায় যেন আরো মিষ্টি লাগে...সেই বড় বড় চোখ দুটি চেয়ে তাকিয়ে আছে তার দিকে...দীপের মনে হল যেন সময় থমকে গেছে পুজার চোখেই...ঘড়ির কাটাগুলোও যেন পুজার নীরব আদেশ পালন করছে আর স্থির হয়ে আছে.. আস্তে আস্তে দীপ ব্যাগ থেকে একটা তরতাজা গোলাপ আর পুজার প্রিয় চকলেটটা বার করে পুজার দিকে এগোতে থাকল....!!!!! দীপ স্পষ্ট শুনতে পেল পুজা তাকে বলছে-"দীপ আমি তো তোমার জন্যে কোনো গিফট আনতে পারিনি গো" দীপ অভিমানি গলায় বলল- "কিচ্ছু আনোনি..ইসস কি বাজে গো তুমি" পুজা খুব ধীরে ধীরে বললো-"আমি যেখানে থাকি সেখানে তো কোনো গিফট পাওয়া যায় না..তাই শুধু ভালোবাসা ছাড়া আর কিছুই আনতে পারিনি গো" পুজার কথাটা শেষ হতে পারলনা, তার আগেই দীপ হঠাত চমকে দু পা পিছিয়ে গেল..... দীপের চোখে জ্বলে উঠল আগের বছরের সেই অভিশপ্ত রাতটার কথা...... সেদিনো ছিল ভ্যালেন্টাইনস ডে...সারা সন্ধ্যে একসাথে কাটিয়ে দীপ আর পুজা ফিরছিল বাড়ির পথে, কিন্তু নিয়তির ভয়ংকর এক খেলা সেদিন দেখেছিল দীপ। বাড়ির খুব কাছেই পুজাকে চারজন মাতাল গুন্ডা তার চোখের সামনেই বীভৎস ভাবে রেপ করেছিল.. দীপ প্রতিবাদ করতে যাওয়ায় তার পেটেও বোতল ভেঙে ঢুকিয়ে দিয়েছিল তারা...ব্যাথায় কাতরাচ্ছিল দীপ কিন্তু সেই রাতে না কেউ এগিয়ে এসেছিল না সে নিজে তার পুজাকে রক্ষা করতে পেরেছিল... অনেক দিন পর হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে যখন সে পুজার বাড়ি গেছিল সেদিন তার পুজাকে সে দেখেছিল একটা ফটো ফ্রেমে...পুজা সুইসাইড করেছিল.... ওই একটা ভ্যালেন্টাইন ডে এর রাত তার জীবন থেকে সব আলো শুষে নিয়েছিল... তারপর কেটে গেছে বহুদিন, দীপ সেদিনের পর থেকেই বিশ্বাস করে পুজা তার সাথেই থাকে,কথা বলে.... দীপকে কেউ কোনোদিন বিশ্বাস করাতে পারেনি যে পুজা আর নেই..সে সবসময়ই পুজার সাথে কথা বলে..লোকে ভাবে দীপ পাগল হয়ে গেছে।। অবশ্য তাতে দীপের কোনো হেলদোল নেই.... সে প্রতিবাদও করেনা!!!!! পুজার হাসিমুখে তাকিয়ে থাকার ফটোটার নীচে সে গোলাপ আর চকলেটটা রেখে অস্ফুটভাবে বললো- "হ্যাপি অ্যানিভার্সারি সোনা.. হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন ডে"......" এই বলে হাসতে হাসতে ছাদের দিকে এগিয়ে গেল দীপ...আজ তার মুক্তি..পুজা চলে যাওয়ার পরেই দীপ ঠিক করে নিয়েছিল, ঠিক এক বছর পর সে পুজার সাথে দেখা করতে তার দেশেই যাবে....আজ সেই দিন। আজ সে পুজার সাথে মিলিত হবে....আনন্দে তার মুখ ঝলমল করে উঠলো!!!!!!! তাদের ভালোবাসা এই পার্থিব বিশ্বে অসম্পূর্ণ থাকলেও কোনো এক জগতে আজ তারা সম্পূর্ণ হতে চলেছে.... সাক্ষী থাকল একটা তাজা গোলাপ আর ভ্যালেন্টাইন ডে....!!!!!! আর, মুক্তি পেল একটা ভালবাসার হাওয়া একবছর ধরে মরে থাকা এক লাশের শরীর থেকে।
গল্পকারঃ- ভীর চৌধুরী